করোনা কামড় : মাত্র দু’মাসে ২৮ শতাংশ সম্পত্তি মুছে গেল ভারতীয় ধনকুবেরের

করোনা যেন গত দুই মাসে বিশ্বের সমস্ত গরিব ধনীদের এক ছাদের তলায় এনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে । করোনা ছোবল যে শুধুমাত্র গরিব মানুষদের উপর নেমে এসেছে তা নয় তথাকথিত ধনকুবেররাও আজ লকডাউন এর জেরে জেরবার ।

মাত্র এক মাস আগেই হারিয়েছিলেন এশিয়ার সব থেকে ধনী ব্যাক্তির তকমা । গত দু মাসে ভারতের সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান অ্যান্ড ম্যানেজিং ডিরেক্টরের মুকেশ আম্বানির‌ নিট সম্পদ ২৮% কমে গিয়েছে । হিসেবে মতো মোট সম্পদ ১৯ বিলিয়ন ডলার কমেছে যা প্রতিদিনের হিসেবে ৩০০ মিলিয়ন ডলার। এই ভাবে শেয়ারবাজারে সংশোধন হওয়ায় ৩১ মার্চ নিট সম্পদ গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮ বিলিয়ন ডলার। । এর ফলে বিশ্বের ধনী তালিকায় তার স্থান অষ্টম থেকে ১৭ তম তে নেমে এসেছে।

অন্যান্য ভারতীয় ব্যবসায়ী যাদের সম্পদ ভীষণভাবে কমে গিয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, গৌতম আদানি যার সম্পদ মুছে গিয়েছে ৬ বিলিয়ন ডলার বা ৩৭ শতাংশ। তেমনই এইচসিএল টেকনোলজির শিব নাদারের ২৬ শতাংশ বা ৫ বিলিয়ন ডলার এবং উদয় কোটাকের ৪ বিলিয়ন ডলার বা ২৮ শতাংশ সম্পদ মুছে গিয়েছে। এর ফলে এই তিনজনই বিশ্বের শীর্ষে থাকা ১০০ জন ধনীর তালিকার বাইরে চলে গিয়েছেন।

ওই তালিকায় এখন একমাত্র ভারতীয় হিসেবে রয়েছেন মুকেশ আম্বানিই। গত দুই মাস ধরে করোনা অতি মহামারী আকার ধারণ করায় যেভাবে গোটা বিশ্বে শেয়ার বেচার হিড়িক পড়েছিল তাতে ভারতীয় শেয়ার বাজারে সংশোধনের জেরে ২৫ শতাংশ মূল্য হ্রাস হয়েছে । দেখা গিয়েছে বিশ্বের মধ্যে আম্বানি হলেন দ্বিতীয় যার সম্পদ সবচেয়ে বেশি মুছে গিয়েছে।

ওই তালিকায় শীর্ষে থাকা একমাত্র ব্যক্তিটি হলেন ফ্রেঞ্চ ফ্যাশন জায়েন্ট এল ভি এমএইচ-র চিফ এক্সিকিউটিভ বার্নাড আর্নল্ড যার ২৮ শতাংশ বা ৩০ বিলিয়ান ডলার সম্পদ মুছে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৭৭ বিলিয়ন ডলার। ওয়ারেন বাফেট গত দু মাসের ১৯ বিলিয়ান ডলার হারিয়েছেন ফলে তার মোট সম্পদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮৩ মিলিয়ন ডলার। সবচেয়ে বেশি সম্পদ হারানো প্রথম দশ জনের তালিকায় রয়েছেন কার্লোস স্লিম, বিল গেটস, মার্ক জুকারবার্গ, ল্যারি পেজ, সার্জি বিন, মাইকেল ব্লুমবার্গ প্রমুখ।

Leave a Comment