এবার ভার্চুয়াল জগৎ-এ আক্রমণ চীনা হ্যাকারদের

ভৌগোলিক এলাকা থেকে শুরু করে ইন্টারনেটের দুনিয়া সর্বত্রই চীন চালিয়ে যেতে চায় তার আগ্রাসন নীতি। লাদাখে ভারতীয় সেনাদের জবাবি হামলায় রীতিমত মুখ ভোঁতা হয়ে গেছে চি সিংফিং সরকারের তাই এবার এরা নেমেছে ভার্চুয়াল লড়াইতে।

মহারাষ্ট্রের সাইবার সেলের বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন চীন সরকারের মদতপুষ্ট হ্যাকাররা ভারতের পরিকাঠামো, ব্যাঙ্কিং এবং আইটি ক্ষেত্রেই তাদের তৎপরতা বেশি দেখাচ্ছে, এবং চীনা হ্যাকারদের দোসর হয়েছে পাকিস্তানী হ্যাকার।

মহারাষ্ট্র পুলিশের সাইবার সেলের আইজি বৈষ্ণবী যাদব জানিয়েছেন ” লাদাখ পরিস্থিতির পর প্রায় ৪০ হাজার ৩০০ টি সাইবার এটাক হয়েছে এবং পরিকাঠামো, ব্যাঙ্কিং ও আইটি কে লক্ষ করেই এই আক্রমণ করেছে চীন। চীনের সিচুয়ান প্রদেশের রাজধানী চেংদু থেকেই বেশির ভাগ আক্রমণ চালানো হয়েছে, আক্রমণ গুলি বস্তুত তিন ধরণের- পরিষেবায় অস্বীকার বা denial of service, আইপি হাইজ্যাকিং এবং ফিশিং “।

এন্টিভাইরাস সংস্থা কুইক হিল এর সিকিউরিটি ল্যাব ডিরেক্টর হিমাংশু দুবে বলেন ” গত কয়েকদিন ধরে বেশ আটঘাট বেঁধেই চিন এই হামলা চালাচ্ছে, দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পরিকাঠামো গুলোর ক্ষেত্রে সাইবার হামলা চালানো হচ্ছে এবং তাদেরকে চীনের কমান্ড এন্ড কন্ট্রোল সার্ভারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছে, যেসব কম্পিউটার সিস্টেমকে টার্গেট করা হয়েছে তাদের মধ্যে ক্রিপ্টো মাইনরস এবং রিমোট এক্সেস টুল ম্যালওয়্যার ঢোকানো হচ্ছে যাতে ওই কম্পিউটার গুলোর সাথে রিমোটলি যোগাযোগ স্থাপন করা যায়”।

এর সাথে পাকিস্তানী হ্যাকাররাও যোগ দিয়েছে, পাকিস্তানের একটি হ্যাকার গোষ্ঠী এপিটি-৩৬ ক্রমাগত দেশের সুরক্ষায় হানাদারি চালাচ্ছে। তবে চীনা এবং পাকিস্তানি এই দুই হ্যাকার গোষ্ঠীর মধ্যে কোন সম্পর্ক আছে কিনা সেটা এখনো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এরমধ্যে হানি ট্রাপিং এর ও চেষ্টা করা হচ্ছে।

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে সাধারণ মানুষকে আরো সচেতন হতে হবে। নিজেদের ব্যাংকিং সংক্রান্ত যে কোন তথ্য কাউকে দেওয়া চলবে না। অনলাইনের ক্ষেত্রে আর্থিক আদান-প্রদানে আরো বেশি সতর্ক হতে হবে, ইমেইল ব্যবহারের ক্ষেত্রে অনেক বেশি সর্তকতা নিতে হবে, কোন অচেনা ইমেইল আইডি থেকে আসা ইমেইল খোলা চলবে না।

Leave a Comment