ড্রাই ফ্রুটসের নেই বিকল্প

আমার বাচ্চা রোজ ভালোভাবে খেয়ে নেই এমন কথা জোর গলায় বলতে পারা মায়েদের সংখ্যা খুবই কম। উঠতি বয়সের বাচ্চারা কখনোই একভাবে বসে বসে সব পুষ্টিকর খাদ্য খেতে পারবে এমন ভাবাটাও তেমনি ভুল। ক্ষতি কিন্তু এতে ওদেরই হয়৷ শারীরিক, মানসিক বিকাশ বাধাপ্রাপ্ত হয়। বুদ্ধি ও স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতেও খামতি থেকে যায়। এমন কিছু খাবার ওদের খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে যাতে সব কিছু পুষ্টিগুনও পাওয়া যাবে ও বাচ্চা খেতেও পছন্দ করবে। ড্রাই ফ্রুটসের থেকে ভালো খাবার আর কিছু হতেই পারে না। যা চাইলে খাবারে মিশিয়েও দেওয়া যায় আবার ঘুরতে ফিরতে বাচ্চা এমনিতেও খেতে পারে। ড্রাই ফ্রুটসের এমনই কিছু গুনাগুন পড়ে নিন।

শিশুদের ৭ থেকে ৯ মাস বয়স থেকেই শুকনো ফল দেওয়া শুরু করতে পারেন। অবে অবশ্যই নজর রাখতে হবে তার কোন হজমের সমস্যা হচ্ছে কিনা। শিশুদের খেঁজুর, আমন্ড বাদাম, পিনাট বাদাম, কাজু বাদাম, কিসমিস এই জাতীয় শুকনো ফলগুলি দেওয়া যেতে পারে নিশ্চিন্তেই।

▶এই ধরনের ফলগুলি আয়রনের মাত্রা বেশি থাকায় হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে রক্তাল্পতা দূর হয়।
▶ফাইবার, প্রোটিন, জিঙ্ক, আয়রন ও অনান্য উপকারী খনিজগুলির উৎস হওয়ায় তা শিশুর শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করেম
▶ফাইবার যুক্ত হওয়ায় কোষ্ঠকাঠিন্যতা নিরাময় করে।
▶আখরোটের মতো শুকনো ফল ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ হওয়ায় তা শিশুর মস্তিষ্ক বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
▶শুকনো ফলগুলি ভিটামিন -এ ও ক্যালসিয়াম যুক্ত হওয়ায় বাড়ন্ত বাচ্চার চোখ ও হাড় শক্ত করতে সাহায্য করে।
▶আপনার শিশু আরও বেশি খাওয়া শুরু করার সাথে সাথে তার দেহে ফ্রি রডিকেল‍্যা তৈরি হয় যা তার ডিএনএ-র ক্ষতি করতে পারে। এটি মৌলিক ক্যান্সারের কারণ হিসাবে পরিচিত। শুকনো ফলের অক্সিড্যান্টগুলি এটি হতে বাধা দিতে পারে।

তাই আজ থেকেই আপনার বাড়ন্ত বাচ্চার খাদ্য তালিকায় যোগ করে নিতে পারেন শুকনো ফলগুলি। এগুলি নানা খাবারের সাথে মিশিয়েও নতুন চমকপ্রদ ও সুস্বাদ খাবার বানাতে পারেন।

Leave a Comment