কারণ জানে না বিজ্ঞানও, দাবানল নিয়ে দাবি ট্রাম্পের

ডেমোক্রেট পদপ্রার্থী জো বাইডেন ইতিমধ্যেই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে করোনা সংক্রমণ আটকাতে ডাহা ফেল ঘোষণা করেছিলেন এছাড়া এই তালিকায় যুক্ত হয়েছিল বর্ণ বৈষম্যের বিরুদ্ধে আমেরিকার আন্দোলন আর এবার আমেরিকার পশ্চিমাংশের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের জঙ্গলে হওয়া দাবানল নিয়েও বিদ্ধ করতে ছাড়লেন না তার বিরোধীকে।

গতকাল ক্যালিফোর্নিয়ার দাবানল বিধ্বস্ত অঞ্চল পরিদর্শন করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরিদর্শনের পর একটি প্রেস কনফারেন্সে তিনি জানান ” এখানে যা হচ্ছে, মনে হয়না তার উত্তর বিজ্ঞানের কাছেও আছে। বনাঞ্চলের রক্ষণাবেক্ষণের অভাবই এরকম দাবানল এর জন্য দায়ী”। তিনি আরো বলেন “হঠাৎ করে অনেকগুলো গাছ পড়ে শুকিয়ে গেলে সেগুলো দেশলাই কাঠির মত হয়ে যায়, এমনকি শুকনোপাতা থেকেও এরকম দাবানলের সূত্রপাত হতে পারে”। তার এই মন্তব্যের জেরেই জো বাইডেন বলেন যে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যেভাবে জলবায়ুর পরিবর্তনের ভূমিকা কে অগ্রাহ্য করেছে তাতে আমার মনে হয় আর কিছুদিনের মধ্যেই গোটা আমেরিকায় দাবানল শুরু হয়ে যাবে।

তবে জঙ্গলের যে অংশে দাবানল লেগেছে তার বেশির ভাগটাই ফেডারেল সরকার অর্থাৎ হোয়াইট হাউসের আওতায় পরে। এদিকে প্রেসিডেন্ট যখন জলবায়ু পরিবর্তন কে নস্যাৎ করে দিয়েছেন ঠিক তখনই তার প্রতিদ্বন্দ্বি জো বাইডেন, উইলমিংটন-এর একটি সভায় বলেন “আরো চার বছর যদি এই প্রেসিডেন্ট দেশ শাসন করে তাহলে গোটা আমেরিকা জ্বলে পুড়ে খাক হয়ে যাবে, প্রতিবছর উপকূল অঞ্চলে হওয়া হ্যারিকেনের ওপরও হাত রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের কিন্তু ট্রাম্প কোন দিন সে কথা স্বীকার করবেন না। আসলে উনি নিজেই পরিবেশে আগুন লাগানোর কাজটা করছেন”।

ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানল এর অবস্থার একটু উন্নতি হলেও ওরেগানের অবস্থা ভয়ানক, সেখানে এখনো পর্যন্ত ২২ জন নিখোঁজ। গতকাল বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকলেও বৃষ্টির দেখা মেলেনি। আগামীকাল বা পরশু ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে তবে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হলে আবার নতুন করে আগুন লাগার আশঙ্কা রয়েছে।

Leave a Comment