আগে নয় ভ্যাকসিন!

ইতিমধ্যেই রাশিয়া এবং চিন নিজের দেশের ভ্যাকসিন তৃতীয় হিউমান ট্রায়াল সম্পন্ন হওয়ার আগেই দেশবাসীর ওপর প্রয়োগে ছাড়পত্র দিয়েছে। আমেরিকাও আগের সপ্তাহে করোনার ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিল। হোয়াইট হাউস ইতিমধ্যেই রাজ্যগুলোকে নির্দেশনামা পাঠিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা ইতিমধ্যেই এই পদক্ষেপকে সরকারের ভোটকেন্দ্রিক রাজনীতি বলেছেন, তবে এবারে বেঁকে বসলো ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি। ফাইজার, মডার্না এবং জনসন এন্ড জনসন এদের প্রত্যেকের ভ্যাকসিন তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে রয়েছে, এই সংস্থা তিনটি মার্কিন সরকারের কাছে প্রতিবেদন আনতে চলেছে যে এরা তৃতীয় পর্যায়ের হিউমান ট্রায়ালের ফলাফল না আসা অব্দি সাধারণ জনগণের টিকাকরণের বিপক্ষে এবং কোনো টিকাকেই যেন ছাড়পত্র এই মুহূর্তে দেওয়া না হয়।

রাশিয়া গত ১১ই অগাস্ট তাদের পরীক্ষাধীন ভ্যাকসিন স্পুটনিক ভি কে ছাড়পত্র দিয়েছে। চিন তারও আগে নিজের দেশে ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র দিয়েছে। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এর বিরোধিতা করলেও তাতে রাশিয়া এবং চিন কেউ কর্ণপাত করেনি। তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল টি যেকোনো ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়, এবং রাশিয়া এবং চিন এদের কেউই এই পর্যায়ের সঠিক পরীক্ষণ করেনি।

এদিকে একটি মার্কিন দৈনিকের রিপোর্ট অনুযায়ী, আমেরিকার ওষুধ তৈরীর সংস্থাগুলি যথেষ্ট সাবধানী এবং ভ্যাকসিনের গুণগত মান বজায় রাখতে যথেষ্ট সচেতন এবং সেই কারণেই হয়তো তারা সরকারের নির্দেশনামার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দিতে চলছে।

আমেরিকায় মৃতের সংখ্যা সর্বাধিক, প্রায় ১ লক্ষ ৯২ হাজার, তাই ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্যাকসিনের দ্রুত ছাড়পত্রের জন্য হয়তো চাপ আসছে। তবে মডার্না, ফাইজার বা জনসন এন্ড জনসন এই নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।

Leave a Comment